তায়াম্মুমের ফরজ কয়টি

তায়াম্মুমের ফরজ কয়টি – তায়াম্মুমের নিয়ম।

Rate this post

তায়াম্মুমের ফরজ কয়টি

তায়াম্মুমের ফরয
পবিত্রতার নিয়ত করা
সমস্ত মুখ একবার মাসাহ করা
দুই হাতের কনুইসহ মাসাহ করা

এটা পড়ুন: গোসলের ফরজ কয়টি ও কী কী বিস্তারিত !

তায়াম্মুমের ফরয ৩টি

  • পাক হওয়ার নিয়ত করা (নামাজ পড়া বা কোরআন তিলাওয়া‌তের জন্য প‌বিত্রতা অর্জ‌নের নিয়্যত করা)।
  • দুই হাত একবার মাটিতে রে‌খে/মেরে তা দিয়ে মুখমন্ডল মাসেহ করা।
  • দুই হাত আবার মাটিতে রে‌খে/মেরে দুই হাতের কনুই মাসেহ করা।
তায়াম্মুমের ফরজ কয়টি
তায়াম্মুমের ফরজ কয়টি

তায়াম্মুমের সুন্নত

  1. বিসমিল্লাহ বলা
  2. প্রথমে দুই হাত পরে দুই হাত কনুই মাসেহ করা।
  3. মাটিতে হাতের তালু মারা পিঠের দিক নয়।
  4. মাটিতে হাত মারার পর মাটি ঝেড়ে ফেলা।
  5. দুই হাতের আংগুল প্রসারিত করে মাটিতে মারা যাতে হাতে ধুলা লাগে।
  6. অন্তত তিন আংগুল দিয়ে চেহারা ও হাত মাসেহ করা।
  7. প্রথমে ডান হাত ও পরে বাম হাত মাসেহ করা।
  8. চেহারা মাসেহ করার পর দাড়ি খেলাল করা।

যা কিছু দ্বারা তাইয়াম্মুম সঠিক হবে

  • মাটি
  • বালি
  • বিভিন্ন ধরনের পাথর, যেমন কালো পাথর, মারমার (মার্বেল) পাথর, চুনা পাথর ইত্যাদি।
  • মাটি জাতীয় সব জিনিসের উপর তায়াম্মুম করা যেতে পারে, যেমন পোড়া কাদা মাটি- ইট ও কলস।

কখন তায়াম্মুম করা জায়েজ আছে?

  • যদি পানি পাওয়া না যায়।
  • পানি যদি এক ক্রোশ দূরে থাকে (এক ক্রোশ হলো, চার হাজার কদম।)
  • পাওয়া গেলেও নাগালের বাইরে।
  • পানি ব্যবহারে ভীষণ ক্ষতির আশংকা।
  • (সুস্থ ব্যক্তি) অসুস্থ হয়ে পড়ার বা (রুগ্ন ব্যক্তির) রোগ নিরাময়ে বিলম্ব হওয়ার কিংবা রোগ বেড়ে যাওয়ার আশংকা থাকলে।
  • শত্রু, হিংস্র প্রাণীর ভয় বা পিপাসার ভয় থাকে কিংবা বালতি বা রশি পাওয়া না যায়।
  • যে সব নামাজের কাজা নেই (যেমন জানাযা ও ঈদের নামাজ ইত্যাদি) তা ওজু করে না পাওয়ার আশংকা থাকলে।

গুগল নিউজ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *