স্মার্ট কার্ড চেক

স্মার্ট কার্ড চেক – স্মার্ট আইডি কার্ড বের করার নিয়ম এই লিংকে

Rate this post

স্মার্ট কার্ড চেক

স্মার্ট কার্ড চেক করার জন্য ভোটার আইডি কার্ড না থাকলে যদি ভোটার ফর্ম নাম্বার দিয়ে স্মার্ট কার্ড চেক চেক করতে আপনার মোবাইলের মেসেজ অপশন থেকে NID লিখে স্পেস দিন, এরপর ভোটার ফর্ম নাম্বার লিখে পুনরায় স্পেস দিয়ে জন্ম তারিখ লিখে ১০৫ নাম্বারে মেসেজ পাঠান।

স্মার্ট আইডি কার্ড বের করার নিয়ম জানতে চান? স্মার্ট কার্ড চেক করার নিয়ম জানলে এখন আর স্মার্ট কার্ড চেক করতে উপজেলা নির্বাচন অফিসে যেতে হবেনা। স্মার্ট ভোটার আইডি কার্ড চেক করার নিয়ম জানা থাকলে ঘরে বসেই স্মার্ট কার্ড বের করা যায়।

স্মার্ট আইডি কার্ডে সিম কার্ডের ন্যায় একটি ছোট চিপ রয়েছে যেখানে ব্যক্তির নাম, পরিচয়, এড্রেস, ছবিসহ মোট ৩২ ধরনের ডাটা সংরক্ষিত থাকে।

ইভিএম ভোটিং মেশিনের নাম আমরা ইতিমধ্যেই শুনেছি। বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন ও Bangladesh National Identity Registration Wing এর যৌথ প্রচেষ্টায় ইভিএম মেশিনে ভোটিং শুরু করার জন্য সকল ভোটারদেরকে স্মার্ট জাতীয় পরিচয় পত্র প্রদানের লক্ষ্যে ২০১৬ সাল থেকে স্মার্ট আইডি কার্ড দেওয়া শুরু করে।

আপনি কি ভোটার আইডি কার্ডের জন্য আবেদন করেছেন? কিংবা আপনার কাছে সাধারণ জাতীয় পরিচয় পত্র আছে, কিন্তু স্মার্ট আইডি কার্ড হয়েছে কিনা জানতে চান! তাহলে আপনাকে অনলাইনে স্মার্ট কার্ড চেক করার নিয়ম জানতে হবে।

ভোটার আইডি কার্ড চেক 2022 – ভোটার আইডি কার্ড চেক করার নিয়ম

ভোটার আইডি কার্ড চেক 2022 – ভোটার আইডি কার্ড চেক করার নিয়ম একজন নাগরিকের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ আইডেন্টি হচ্ছে তার ভোটার আইডি কার্ড। আর এই ভোটার আইডি কার্ড চেক করার জন্য আমরা বিভিন্ন মাধ্যম ব্যবহার করে থাকি। অল্প সময়ে ভোটার আইডি কার্ড চেক করার জন্য আমরা অনলাইনের মাধ্যমে ব্যবহার করি। কিন্তু অনলাইনের মাধ্যমে অল্প সময়ে ভোটার আইডি কার্ড কিভাবে চেক করতে হয় তা আমরা অনেকেই জানি না।

স্মার্ট কার্ড চেক
স্মার্ট কার্ড চেক

ভোটার আইডি কার্ড চেক

ভোটার আইডি কার্ড চেক ও ডাউনলোড করতে আমাদেরকে অনেক সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে অনলাইনে ভোটার আইডি কার্ড বের করতে পারতেছেন না। তাই এই পোস্টটি যদি আপনি ভালো ভাবে ফলো করেন তাহলে অনেক সহজেই আপনি আপনার ভোটার আইডি কার্ড চেক করতে পারবেন, এবং ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করতে পারবেন। তাহলে শুরু করা যাক আজকের ভোটার আইডি কার্ড চেক করার পদ্ধতিটি।

জন্ম নিবন্ধন আবেদন ফরম পূরণ – নতুন জন্ম নিবন্ধন আবেদন

ভোটার আইডি কার্ড চেক ২০২২

আমরা অনলাইনে নতুন ভোটার হওয়ার জন্য একটি আবেদন ফরম পূরণ করতে হয়, এবং পরবর্তীতে এই আবেদন ফরম নির্বাচন কমিশনে জমা দেওয়ার পর আমাদের ফটো এবং ফিঙ্গার দিয়ে থাকে। এই সময় ভোটার আইডি কার্ড চেক বা পরবর্তীতে নিয়ে যাওয়ার জন্য একটি স্লিপ দেওয়া হয় যেখানে ৯ ডিজেটের একটি নাম্বার থাকে আমরা এই নাম্বারের মাধ্যমে ভোটার আইডি কার্ড চেক করব। নিচের ছবির মত স্লিপ দেওয়া হয়।

ভোটার আইডি কার্ড চেক করার ধাপসমূহ

প্রথমে আপনার মোবাইলের বা কম্পিউটারের যেকোনো একটি ব্রাউজার ওপেন করুন এবং গুগলে সার্চ করুন. NID Card Check, সর্ব প্রথম services.nidw.gov.bd এ ওয়েবসাইট আসবে সেই ওয়েবসাইটে ভিজিট করুন। তখন নিচে দেওয়া পিকচারের মত হোম পেজ আপনার সামনে আসবে।

ভোটার আইডি কার্ড চেক

আপনি নতুন ভোটার হয়েছেন তাই আপনাকে ভোটার আইডি কার্ড চেক করার জন্য রেজিস্ট্রেশন করতে হবে আপনি রেজিস্ট্রেশন অপশনে ক্লিক করুন। তারপর আপনি পরের ধাপ পড়ুন।

জাতীয় পরিচয় পত্র সংশোধন – নিজের নাম সংশোধনে করণীয় এবং প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসমূহ।

NID Card চেক করার জন্য রেজিস্ট্রেশন অপশনে ক্লিক করার পর উপরের পিকচারের মত পেইজ ওপেন হবে এখানে প্রথমে ২ টি অপশন রয়েছে একটি হল ফর্ম নাম্বার এবং আরেকটি হল ভোটার আইডি কার্ডের নাম্বার,  এই দুই মাধ্যমেই ভোটার আইডি কার্ড চেক করতে হবে, যেহেতু আপনি নতুন আইডি চেক করবেন তাই এখনও ভোটার আইডি কার্ড পাননি তাই আপনার কাছে এন আইডি কার্ডের নাম্বার নেই আপনি স্লিপ নাম্বার দিয়ে চেক করবেন।

জাতীয় পরিচয় পত্র সংশোধন
জাতীয় পরিচয় পত্র সংশোধন

ভোটার আইডি কার্ড চেক করার প্রথম ধাপ।

আপনি ফরম নাম্বারের (স্লিপ নাম্বার) নয় ডিজিটের নাম্বার প্রথম লাইনে বসাবেন, অথবা ভোটার আইডি কার্ডের নাম্বার বসাবেন যদি থাকে, তার পর আপনার জন্ম তারিখ সঠিক ভাবে বসাবেন, এবং একটি কেপচার দেওয়া রয়েছে এটি দিয়ে ভোটার আইডি চেক করতে সাবমিট অপশনে ক্লিক করুন। পরের ধাপ পড়ুন।

কিভাবে আইডি কার্ড বের করবো

জাতীয় পরিচয়পত্র চেক এর দ্বীতিয় ধাপ

নাম্বার জন্ম তারিখ দেওয়ার পর এখন আপনার অ্যাকাউন্ট ইনফরমেশন দিবেন আপনার ভোটার এলাকার নাম জেলার নাম বিভাগের নাম সব কিছু ভোটার আইডি কার্ডে যেভাবে দেওয়া রয়েছে ঠিক সেভাবেই দিবেন ভুল হলে আপনার রেজিস্ট্রেশন হবে না তাই সঠিক ভাবে বসাবেন।

ভোটার আইডি কার্ড চেক তৃতীয় ধাপ

এই ধাপে আপনার মোবাইল নাম্বার ভিরিফাই করতে হবে আপনি ভোটার ফরম দেওয়ার সময় যে মোবাইল নাম্বার দিয়েছেন এই পেইজটিতে নাম্বারটি সো হবে আপনি চাইলে চেইন্জ অপশনে ক্লিক করে চেঞ্জ ও করতে পারবেন। কোডের জন্য ক্লিক করবেন আপনার ফোনে একটি কোড আসবে এই কোডটি এখানে বসাবেন এবং পরবর্তী ধাপের জন্য ক্লিক করবেন।

ভোটার আইডি কার্ড ফেইস ভেরিফাই

নাম্বার ভিরিফাই শেষ হওয়ার আপনার সামনে নতুন একটি পেজ আসবে এই পেইজটিতে আপনি NID Wallet ইন্সটল করতে হবে এবং আপনার ফেইস ভেরিফাই করতে হবে নিচের ছবির প্রতি লক্ষ্য করুন।

ভোটার আইডি কার্ড চেক করার জন্য ফেইস ভেরিফাই করার প্রয়োজন হয়। আইডি কার্ড চেক করতে ফেইস ভেরিফাই কিভাবে করবেন তার সহজ উপায় আমরা বলে দিচ্ছি যাতে আপনি সহজে করতে পারেন ফেইস ভেরিফাই এবং এন আইডি কার্ড চেক।

স্টেপ ১. NID Wallet নামের একটি অ্যাপ ইন্সটল করতে হবে এর জন্য প্রথমে আপনি আপনার মোবাইলের প্লে স্টোর ওপেন করে সার্চ করুন NID Wallet এন আইডি ওয়ালেট সার্চ করার পর প্রথমে যে অ্যাপ আসবে আপনি ইন্সটল করে নিন।

স্টেপ ২. অ্যাপ ইন্সটল করার পর আপনি ভোটার আইডি কার্ড রেজিস্ট্রেশন করার যে ধাপে ছিলেন সেখানে লাল বটমে ক্লিক করবেন যাতে লেখা রয়েছে Tap to open NID Wallet ক্লিক করার পর আপনি আপনার ইন্সটল করা অ্যাপ নিচে দেখবেন ক্লিক করার সাথে সাথে ভেরিফাই করার জন্য অপশন পেয়ে যাবেন।

স্টেপ ৩. আপনার ফেইস ভেরিফাই কমপ্লিট হওয়ার পর অটোমেটিকলি আপনি ভোটার আইডি কার্ড রেজিস্ট্রেশন করার যে ধাপে ছিলেন সে ধাপে নিয়ে যাবে এবং আপনি আপনার ফেইস ভেরিফাই সাকসেসফুল দেখতে পাবেন।

আপনি উপরে দেওয়া ফেইস ভেরিফাই করার নিয়ম অনুসরণ করে ভেরিফাই করার কাজ সম্পূর্ণ করতে পারবেন। আপনি যখন ফেইস ভেরিফাই করা শেষ করে নিবেন তারপর ভোটার আইডি কার্ড চেক করার জন্য পরবর্তী ধাপে অটোমেটিকলি নিয়ে যাবে। ফেইস ভেরিফাই করতে আপনি লাল বটমে ক্লিক করলে আপনাকে অ্যাপস ডাউনলোড করার জন্য একটি পেইজ আসবে আপনি ডাউনলোড করার আবার লাল বটমে ক্লিক করলে নিচে দেখবেন NID Wallet apps টি আসবে অ্যাপসে ডুকার পর বাকি সব বুঝতে পারবেন। ভেরিফাই কমপ্লিট হলে পরের ধাপ পড়ুন।

ভোটার আইডি কার্ড চেক ও ডাউনলোড করার ৫ম ধাপ

ভোটার আইডি কার্ড চেক করার জন্য যখন আপনি ফেইস ভেরিফাই করা শেষ করবেন তখন অটো আরেকটি পেইজ আসবে এবং প্রফাইল পিকচার এবং বাকি ভোটার তথ্য সো হবে এবং এখানে একটি পাসওয়ার্ড সেটাপ করতে বলবে চাইলে আপনি পাসওয়ার্ড করতে ও পারেন আবার চাইলে না দিয়ে আপনি সামনের ধাপে যেতে পারবেন, পাসওয়ার্ড সেটাপ করলে লাভ এটিই যে আপনি পরবর্তিতে যদি আপনি আবার আপনার ভোটার আইডি কার্ড চেক করতে চান বা ডাউনলোড করতে চান তাহলে অনেক সহজেই করতে পারবেন এটি।

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন চেক করুন।

কিভাবে ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করবেন?

পরবর্তী স্টেপে আপনি যদি পাসওয়ার্ড সেটাপ করেন তাহলেত ভোটার আইডি কার্ডের নাম্বার এবং আপনার দেওয়া পাসওয়ার্ড দিয়ে পরের ধাপে যাবেন। আর যদি চান তাহলে এড়িয়ে যেতে ও পারেন, এই পেইজটিতে আপনার ভোটার আইডি কার্ডের সকল তথ্য দেওয়া পাবেন এবং সাইটে আপনার আইডি কার্ডের ডাউনলোড অপশন ও দেখতে পাবেন, ডাউনলোডে ক্লিক করলে আপনার আইডি কার্ড ডাউনলোড হয়ে যাবে।

ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড

ডাউনলোড কমপ্লিট হওয়ার পর আপনি নিচের পিকচারের মত আপনার আইডি কার্ড দেখতে পাবেন।ভোটার

এখন‌ আপনি এই কার্ডের মাধ্যমে আপনার সকল কাজ করতে পারবেন। চাইলে আপনি প্রিন্ট করে আপনার যে সব কাজে প্রয়োজন আপনি ব্যবহার করতে পারবেন।

কোন কিছু না বুঝে থাকলে কমেন্ট করবেন আপনাকে বুঝিয়ে দেওয়া হবে এবং সবাই ভালো থাকবেন এবং পোস্টটি শেয়ার করবেন।

বিঃদ্রঃ আশা করি বুঝতে পারবেন কিভাবে ভোটার আইডি কার্ড চেক করবেন অনলাইনে।

আর এ বিষয়টি নিয়ে অনেকে চিন্তিত আছেন। আপনারা ইতিমধ্যে আমাদের আর্টিকেলটি পড়া শুরু করে দিয়েছেন। হ্যাঁ, আপনার একদম সঠিক স্থানে এসেছেন। কারণ আমরা এখানে ভোটার আইডি কার্ড চেক করার সঠিক নিয়ম দেখাবো। যাতে করে আপনারা খুব অল্প সময়ে এবং নির্ভেজাল আপনার আইডি কার্ড চেক করতে পারেন। চলুন তাহলে শুরু করি আমাদের আজকের গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি।

আপনার যখন 18 বছর পুরনো হবে তখন আপনি বাংলাদেশের সংবিধান অনুসারে ভোট দেয়ার অনুমতি পাবেন। আর এই ভোটার হওয়ার জন্য আপনাদের ভোটার আইডি কার্ড সংগ্রহ করতে হবে। ভবিষ্যতে চাকরির ক্ষেত্রে, বিদেশ ভ্রমণে এবং বিশেষ কোনো কাজের ভোটার আইডি কার্ড একজন নাগরিকের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

আপনার ভোটার আইডি কার্ড চেক করার জন্য আপনারা নির্বাচন কমিশন অফিসে গিয়ে চেক করতে পারেন অথবা অনলাইনের মাধ্যমে চেক করতে পারেন। জাতীয় পরিচয় পত্র বা ভোটার আইডি কার্ড প্রত্যেক নাগরিকের উচিত চেক করে নেয়া। অনেক সময় এই ভোটার আইডি কার্ডের মাধ্যমে বেআইনি কাজ করা হয়ে থাকে। আর সে জন্য নিজ দায়িত্বে আইডি কার্ড চেক করে নেয়া কর্তব্য।

অনলাইনে ভোটার আইডি কার্ড চেক করার নিয়ম

অনলাইনের মাধ্যমে ভোটার আইডি কার্ড চেক করার জন্য উনিটি এর সঠিক নিয়ম জানেন না। তাই আজ আমরা আপনাদের সুবিধার্থে ভোটার আইডি কার্ড বা জাতীয় পরিচয় পত্র চেক করার নিয়ম নিম্নে উল্লেখ করছি-

প্রথমে ভোটার আইডি কার্ড চেক করার জন্য একটি ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে। ওয়েবসাইটের লিঙ্ক হচ্ছে- অনলাইন আইডি কার্ড চেক

বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন ভোটার আইডি কার্ড চেক

এখন আপনি আপনার ভোটার তথ্য জানতে পারবেন। নিম্নের চিত্রের ন্যায় আপনি আপনার ভোটার তথ্য জেনে নিতে পারবেন।

আপনারা যদি মোবাইলের মাধ্যমে নেশনাল আইডি কার্ড চেক করতে চান তাহলে একই নিয়মে ওয়েব সাইটে প্রবেশ করে ভোটার তথ্য যেতে হবে। এক্ষেত্রে যদি আপনার মোবাইলে ওয়েবসাইটে প্রবেশ করার পর কাজ করতে সমস্যা হয়, তাহলে গুগোল সেটিং এ গিয়ে আপনারা ডেক্সটপ মোডে রেখে ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে পারেন।

এরপর আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র নম্বর জন্ম তারিখ এবং ক্যাপচা কোড বসিয়ে ভোটার তথ্য দেখুন বাটনে ক্লিক করে আপনার ভোটার তথ্য চেক করতে পারবেন।
আইডি কার্ড চেক লিংক

ভোটার আইডি কার্ড বা জাতীয় পরিচয় পত্র পাওয়া ন্যাশনাল এনআইডি কার্ড চেক করার জন্য নিম্নে লিঙ্কটি দেওয়া হল- services.nidw.gov.bd

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *