জাযাকাল্লাহ খাইরান এর উত্তর - জাযাকাল্লাহ খাইরান অর্থ কি

জাযাকাল্লাহ খাইরান এর উত্তর – জাযাকাল্লাহ খাইরান অর্থ কি

Rate this post

জাযাকাল্লাহ খাইরান এর উত্তর – জাযাকাল্লাহ খাইরান অর্থ কি

জাযাকাল্লাহু খাইরান (আরবি- جَزَاكَ ٱللَّٰهُ خَيْرًا‎‎) একটি তাৎপর্যপূর্ণ ইসলামিক বাক্য। যার বেশ কয়েকটি সুন্দর অর্থ রয়েছে। তবে এই বাক্যেটির প্রধান বা মূল অর্থ হলো- ‘সৃষ্টিকর্তা আপনাকে উত্তম পুরস্কার বা প্রতিদান দিন’। জাযাকাল্লাহু খাইরান বাক্যাংশটি ‘আল্লাহ’ (সৃষ্টিকর্তা) ও ‘জাযাকা’ অর্থাৎ পুরষ্কার প্রদান করা, এবং ‘খাইরান’ এর অর্থ হল ‘উত্তম’।

জাযাকাল্লাহু খাইরান এর জবাবে ওয়ায়িইইয়াক (১জনকে), অথবা ওয়ায়িইয়াকুম (একের অধিককে) বলা হয়, যার অর্থ “এবং আপনার/ আপনাদের প্রতিও)”। তবে বেশি প্রচলিত জবাব হল: ওয়া’আনতুম ফাজাযাকুমুল্লাহু খায়রান, যার অর্থ “এবং আপনাকেও আল্লাহ উত্তম প্রতিদান দিন”।

উচ্চারণঃ জাযাকাল্লাহু খাইরান
অর্থঃ আল্লাহ আপনাকে উত্তম প্রতিদান দান করুন।

জাযাকাল্লাহ খাইরান এর উত্তর - জাযাকাল্লাহ খাইরান অর্থ কি
জাযাকাল্লাহ খাইরান এর উত্তর – জাযাকাল্লাহ খাইরান অর্থ কি

যদি কারো উপকার করে এবং এর জন্য সে যদি তাকে “জাযাকা-আল্লাহু খাইরন ( ﺟَﺰَﺍﻙَ ﺍﻟﻠﻪُ ﺧَﻴﺮً ) বলে তাহলে সে যেনো তাঁর প্রতি সর্বোচ্চ ধন্যবাদ জ্ঞাপন করলো। বর্ণনায়ঃ আল তিরমিযী ২০৩৫ শাইখ আলবানী সহীহ আল তিরমিযীতে হাদিসটিকে সহীহ বলেছেন।

যেটা বলা সুন্নাহঃ পুরুষদের ধন্যবাদ দেওয়ার জন্য বলা “জাযাকা-আল্লাহু খাইরন ( ﺟَﺰَﺍﻙَ ﺍﻟﻠﻪُ ﺧَﻴﺮً )” এবং মহিলাদের জন্য বলা “জাযাকি-আল্লাহু খাইরন ( ﺟَﺰَﺍﻙِ ﺍﻟﻠﻪُ ﺧَﻴﺮًﺍ )”।

সঠীক উত্তর হলোঃ “ওয়া আনতুম ফা-জাযাকুমু-আল্লাহু খাইরন ( ﻭَﺃَﻧْﺘُﻢْ ﻓَﺠَﺰَﺍﻛُﻢُ ﺍﻟﻠَّﻪُ ﺧَﻴْﺮًﺍ)”।
সতর্ককতা-
আমরা কখনো শুধুমাত্র ‘জাযাকাল্লাহু’ বলবো না। বরং ‘জাযাকাল্লাহু খাইরান’ বলবো। কারণ ‘জাযাকাল্লাহু’ দ্বারা প্রতিদান ভালোও হতে পারে আবার মন্দও হতে পারে। তাই ‘জাযাকাল্লাহু খাইরান’ বলবো।

যখন কেউ জাযাক আল্লাহু খাইরান [বুখারী,হাঃ ৩৩৬; তিরমিযী,হাঃ২০৩৫] – বলে এর জবাবেঃ ‘ওয়া আনতুম ফা জাযাকুম আল্লাহ খাইরান ‘ (এবং আল্লাহ আপনাকেও উত্তম প্রতিদান দিন) [সহীহ ইবনে হিব্বান,হাঃ ৬২৩১;সহীহ তাহক্বীক আলবানী] বলতে হয়।

আরো পরুন: ইয়া মুজিরু অর্থ কি

জাজাকাল্লাহু খাইরান এর অনান্য অর্থসমূহ সম্পর্কে ধারনা নেয়া যাক-

  • সৃষ্টিকর্তা আপনাকে জান্নাত ও জান্নাতে তার দিদার দ্বারা সৌভাগ্যবান করুন।
  • সৃষ্টিকর্তা আপনাকে কাফিরদের স্থান জাহান্নাম থেকে হেফাজত করুন।
  • সৃষ্টিকর্তা যেন আপনাকে সরল পথে পরিচালিত করেন।
  • সৃষ্টিকর্তা যেন আপনার উপর কোন অভিশপ্ত শয়তানকে চাপিয়ে না দেন।
  • সৃষ্টিকর্তা যেন আপনার রিজিকের মধ্যে বরকত দান করেন।
  • সৃষ্টিকর্তা যেন আপনাকে মাতা-পিতার প্রতি শেষ দিবস পর্যন্ত সদ্ব্যবহারকারী করেন।
  • সৃষ্টিকর্তা যেন আপনাকে রাসূলের সুন্নাতের অনুসারী করেন।
  • সৃষ্টিকর্তা আপনাকে নেক সন্তান দান করুন।
  • সৃষ্টিকর্তা আপনাকে সবরকম কল্যাণ দান করুন।
  • গুগল নিউজ ফলো করুন

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *